কিতাব আত তাওহীদের দারস – পর্বঃ ১

কিতাব আত-তাওহীদ

 

ডাউনলোড করুন অধ্যায়-১ [তাওহীদ সমস্ত ইবাদাতের মূল] এর উপর বিস্তারিত আলোচনা- আবূ সুমাইয়া মতিউর রহমান

কিতাব আত-তাওহীদ দারস- [১]-[তাওহীদ সমস্ত ইবাদাতের মূল]

আলহামদুলিল্লাহির রব্বিল আ’আলামীন ওয়াস সলাতু ওয়াস্ব সলামু আ’লা রসুলিহীল আমীন। সমস্ত প্রশংসা মহান আল্লাহ তা’আলার জন্য আর সলাত ও সালাম বর্ষিত্ হোক প্রিয় নাবী মুহাম্মাদ (সঃ) এর উপর। তাওহীদ মানব জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন বিষয়। পৃথীবির সকল নাবী-রসূল এই তাওহীদ প্রতিষ্ঠার জন্য নিজেদের উৎসর্গ করেছেন। আর তার ধারাবাহিকতায় সাহাবারা, তাবেয়ী ও ইমামগন তাদের সাধ্যমত তাওহীদ প্রতিষ্ঠায় অগ্রগামী হয়েছেন। মানুষের মাঝে তাওহীদ এর বিষয়টা ভালোভাবে প্রবেশ করানোর জন্য নানা কিতাব লিখা হয়েছে। তাওহীদপন্থী আলেম উলামাগন- ইসলামে এই কিতাবুত তাওহীদ এর মত আর কোন গ্রন্থ রচিত হয় নি। এটি একটি সহজ ভাষায় দাওয়াতী প্রচারের বই। কারন শায়খ মুহাম্মাদ বিন সুলাইমান আত-তামীমি (রহঃ) তার রচিত এই কিতাবে তাওহীদের মূল প্রমান, অর্থ ও ফযিলাত বর্ননা করেছেন। তাওহীদের বিপরীতে শিরকের ও আলোচনা করে তার ভয়াবহতা তুলে ধরেছেন। তাই আপনি যেখানেই থাকুন না কেন এই কিতাবটি পড়া, মুখস্ত করা ও অনুধাবন করা অতন্ত্য জরুরী।

এ কিতাবের দারস এর মূল উদ্দেশ্য হলঃ

  • ১. মহান আল্লাহকে জানা
  • ২. তার সাথে শিরক না করা
  • ৩. তাওহীদের মুলনীতি গুলো অনুধাবন করা
  • ৪. শিরকের ছিদ্রপথ গুলো বন্ধ করা
  • ৫. মুশ্রিকদের সাথে আচরন ও তাদের প্রতি দাওয়াতের মুলনীতি জানা
  • ৬. জাহেল সমাজে তাওহীদের গুরুত্ব ও এর আসল রুপরেখা তুলে ধরা
  • ৭. শুধুমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য জানা ও মানা।

মহান আল্লাহ বলেনঃ

وَمَا خَلَقْتُ الْجِنَّ وَالْإِنسَ إِلَّا لِيَعْبُدُونِ

শুধুমাত্র আমার এবাদত করার জন্যই আমি মানব ও জিন জাতি সৃষ্টি করেছি। [সুরা যারিয়াতঃ ৫৬]

আল্লাহর এ বানীর মর্ম হলঃ আমি জীন ও মানুষকে অন্য কোন উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করিনি শুধুমাত্র একটি কারনে কএরছি আর তা হল- আমার ইবাদাত করার জন্য। ইবাদাত হল সেই জিনিষ যা আদেশ তা পালন করলে আল্লাহ খুশি হন আর যা নিষেধ তা না পালন করলে আল্লাহ খুশি হন। জীবনের প্রত্যেকটি হালাল কাজ আল্লাহর জন্য করাই ইবাদাত। এ আয়াতে তাওহীদের প্রাথমিক ব্যাখ্যা আছে { إِلَّا لِيَعْبُدُونِ } এর মাঝে। এর অর্থে বলা হচ্ছেঃ আমরা একমাত্র আল্লাহরই ইবাদাত করব আর তাঁর ইবাদাতে কাউকে শরীক করব না। কেননা আমাদের প্রত্যেক নাবী ও রসূলগন তাওহীদের উদেশ্যেই এই দুনিয়াতে এসেছেন। “ইবাদাত” এর শাব্দিক অর্থ হল: বিনয়-নম্রতা ” কিন্তু এর সাথে যদি ভালোবাসা ও ভয়ের সাথে আনুগত্য যুক্ত হয় তাহলে সেটা হল শারীয় ইবাদাত’। অর্থাৎ আমাদের ইবাদাত আল্লাহর জন্য আর ইবাদাত হলঃ

ভালোবাসা, আশা ও ভয়ভীতির সাথে যাবতীয় আদেশ ও নিষেধ মেনে চলাই ইবাদাত

মহান আল্লাহ আবার বলেনঃ

وَلَقَدْ بَعَثْنَا فِي كُلِّ أُمَّةٍ رَّسُولًا أَنِ اعْبُدُوا اللَّهَ وَاجْتَنِبُوا الطَّاغُوتَ

আমি প্রত্যেক উম্মতের মধ্যেই রাসূল প্রেরণ করেছি এই মর্মে যে, তোমরা আল্লাহর এবাদত কর এবং তাগুত থেকে দূরে থাক। [সুরা নাহলঃ ৩৬]

এ আয়াতে ইবাদাত ও তাওহীদের ব্যাখ্যা আছে। আর এখানে বলা হচ্ছে প্রত্যেক রসুল দুটি বানী নিয়ে দুনিয়াতে এসেছেনঃ

  • ১. তোমরা আল্লাহর ইবাদাত কর।
  • ২. তাগুত থেকে দূরে থাকো।

[اعْبُدُوا اللَّهَ] অংশে রয়েছে তাওহীদের কথা আর [وَاجْتَنِبُوا الطَّاغُوتَ] – অংশে রয়েছে শিরকের সাথে অস্বীকার করার কথা। বান্দা তার ইবাদাত ও আনুগত্য এর সীমা অতিক্রম করে যার নিকট নিজেকে সপে দেয় তাকেই তাগুন বলে।

অন্য জাগায় আল্লাহ বলেনঃ

وَقَضَىٰ رَبُّكَ أَلَّا تَعْبُدُوا إِلَّا إِيَّاهُ وَبِالْوَالِدَيْنِ إِحْسَانًا

তোমার রব আদেশ করেছেন যে, তাঁকে ছাড়া অন্য কারও এবাদত করো না এবং পিতা-মাতার সাথে সদ্ব-ব্যবহার কর। [সুরা ইসরাঃ ২৩]

এখানে [وَقَضَىٰ رَبُّكَ] এর অর্থ হল আদেশ করা বা উপদেশ দেয়া। আর [أَلَّا تَعْبُدُوا إِلَّا إِيَّاهُ]—এর অর্থ হলঃ “ইবাদাতকে শুধুমাত্র আল্লাহর মধ্যে সীমাবদ্ধ করা আর কারো মধ্যে নয়।” অর্থাৎ যদি সিজদাহ করি তাহলে একমাত্র আল্লাহর জন্য, যদি কুরবানী দেই তাও শুধুমাত্র আল্লাহর জন্য। অর্থাৎ জীবনের প্রত্যেক হালাল কাজে তার সন্তুষ্টি থাকতে হবে। এখানে কোন [পীর, হুজুর, কেবলা, ইমাম বা দরবেশ- কে শরীক করা যাবে না]। আর বাস্তবে এটাই হলঃ লা-ইলাহা ইল্লাল্লাহ এর – মুল কথা।

মহান আল্লাহ আরো বলেনঃ

قُلْ تَعَالَوْا أَتْلُ مَا حَرَّمَ رَبُّكُمْ عَلَيْكُمْ ۖ أَلَّا تُشْرِكُوا بِهِ شَيْئًا

(হে মুহাম্মাদ!)আপনি বলুনঃ এস, আমি তোমাদেরকে ঐসব বিষয় পড়ে শুনাই, যেগুলো তোমাদের রব তোমাদের জন্যে হারাম করেছেন। আর সেটা হল, আল্লাহর সাথে কোন কিছুকে অংশীদার করো না। [সুরা আন’আমেরঃ ১৫১]

অর্থাৎ আল্লাহ তারঁ রসুলকে দিয়ে আমাদের কে সর্বপ্রথম এই শিক্ষা দিচ্ছেন যে, শরীয়াতের দৃষ্টিতে সবচেয়ে বড় পাপা হল “শিরক” আর তাই এথেকে আমাদের বিরত থাকতে বলেছেন।

আর এর আরো একটি আয়াতের মর্মাথ হলঃ

وَاعْبُدُوا اللَّهَ وَلَا تُشْرِكُوا بِهِ شَيْئًا

আর ইবাদাত কর আল্লাহর, শরীক করো না তাঁর সাথে অপর কাউকে। [সুরা নিসাঃ ৩৬]

এ আয়াতে শিরকে আসগার(ছোট শিরক), শিরকে আকবার(বড় শিরক) ও শিরকে খাফী(গোপন শিরক) সব কিছু নিষিদ্ধ হওয়ার কথা ঘোষনা করা হয়েছে। এছাড়াঃ “কোন মালায়িকা, নাবী রসুল, নেককার বান্দা, দুনিয়াবী বস্তু, জ্বীন এর সাথে আল্লাহর শরীক করা সম্পুর্ন নিষিদ্ধ

ইবনে মাসউদ (রাঃ) থেকে বর্নিতঃ

“যে ব্যাক্তি মুহাম্মাদ (সঃ) এর মোহরাংকিত উপদেশ দেখতে চায় সে যেন মহান আল্লাহর এ বানী পাঠ করেঃ

‘[সুরা আন’আমের ১৫১-১৫৩ পর্যন্তঃ (হে মুহাম্মাদ!)আপনি বলুনঃ এস, আমি তোমাদেরকে ঐসব বিষয় পড়ে শুনাই, যেগুলো তোমাদের রব তোমাদের জন্যে হারাম করেছেন। আর সেটা হল, আল্লাহর সাথে কোন কিছুকে অংশীদার করো না………………… নিশ্চিত এটি আমার সরল পথ। অতএব, এ পথে চল এবং অন্যান্য পথে চলো না…’ ”

এ আয়াতে আল্লাহর তরফ থেকে দশটি উপদেশ আছে আর তা নিম্ন রুপঃ

  • ১. আল্লাহর সাথে শরীক না করা
  • ২. পিতা মাতার সাথে সদ্বাচারন করা
  • ৩. নিজ সন্তানকে দারিদ্রের কারনে হত্যা না করা
  • ৪. প্রকাশ্যে বা অপ্রকাশ্যে নির্লজ্জতার কাছে না যাওয়া
  • ৫. যাকে হত্যা করা হারাম তাকে হত্যা না করা
  • ৬. এতীমের ধনসম্পদ মেরে না খাওয়া
  • ৭. ওজন ও মাপ সঠিক দেয়া
  • ৮. ন্যায় বিচার করা কোন পক্ষপাত্বিত্ব না করা
  • ৯. আল্লাহর তরফ থেকে উপদেশ গ্রহন করা
  • ১০. তাকওয়া অর্জন করা

আর সর্ব প্রথম যে আদেশ আছে তা হল “শিরক না করা”।

মুয়াজ বিন জাবাল (রাঃ) থেকে বর্নিতঃ

“আমি গাধার পিঠে মহানবী (সঃ) এর পেছনে বসে ছিলাম। তিনি আমাকে বললেন- ‘হে মুয়াজ! বান্দার উপর আল্লাহর হক কি? এবং আল্লহর উপর বান্দার হাক্ব কি জানো?’ আমি বললাম- ‘আল্লাহ ও তারঁ রসূল (সঃ) ই ভালো জানেন।’ তখন মুহাম্মাদ (সঃ) বললেন- ‘বান্দার উপর আল্লাহর হক এই যে বান্দা শুধু আল্লাহরই ইবাদাত করবে এবং তারঁ সাথে কাউকে শরীক করবে না।। আর আল্লাহর উপর বান্দার হক্ব এই যে, যে ব্যাক্তি আল্লাহর সাথে কোন শরীক সাবস্ত্য না করে তাকে শাস্তি না দেয়া।।’ আমি বললাম- ‘হে রসুলুল্লাহ (সঃ) আমি কি মানুষকে এই সুসংবাদ দিয়ে দেব না??’ তিনি বললেন- ‘তাদের এ সুসংবাদ দিও না তাহলে তারা আমল বিমুখ হয়ে পড়বে।’” [সহীহ বুখারী ও মুসলিম]

 

এথেকে বোঝা যায় তাওহীদ মেনে চলা আল্লাহর জন্য একটি ওয়াজিব হাক্ব। বান্ন্দাদের মধ্যে সবচেয়ে বড় ওয়াজিব এটা।

আমরা এই অধ্যায় থেকে আরো কিছু জিনিষ জানতে পারি তা হ্লঃ

  • ১. জ্বীন ও মানুষ সৃষ্টির রহস্য
  • ২. ইবাদাতই হল- তাওহীদ। কারন এর মাঝে বিরোধ হয়।
  • ৩. যে ব্যাক্তি তাওহীদ প্রতিষ্ঠা করল না সে কোন ইবাদাতই করল না।
  • ৪. নাবী-রসুলদের পাঠানোর রহস্য
  • ৫. প্রত্যেক আন্তির নিকট নাবী-রসুল পাঠানো হয়েছে
  • ৬. সকল নাবীর দ্বীন- এক ও জীবন ব্যাবস্থাও এক [ইসলাম]
  • ৭. তাগুতকে অস্বীকার না করা পর্যন্ত আল্লাহর ইবাদাত হবে না।
  • ৮. আল্লাহকে বাদ দিয়ে যার ইবাদাত করা হয় সেটাই তাগুত
  • ৯. সুরা আন’আমে দশটি উপদেশ
  • ১০. সুরা ইসরায় আরো আঠারোটি বিষয় আল্লাহ বলেছেন।
  • ১১. আল্লাহর ও বান্দার মাঝে হক এর ব্যাপারে স্পষ্ট ধারনা রাখা
  • ১২. অধিকাংশই সাহাবীরা (রঃ) এবিষয়টি [মুয়াজ বিন জাবাল (রঃ) এর হাদিসটি] জানতেন না
  • ১৩. কল্যানের স্বার্থে এলেম গোপন রাখা
  • ১৪. মুসলমানদের আনন্দের সংবাদ দেয়া মুস্তাহাব
  • ১৫. আল্লাহর দয়ার সীমার কথা ভেবে আমল বিমুখ হওয়ার আশংকা

 

ইনশাহ আল্লাহ! আমরা আগামী দারস-এ আরো তাওহীদের বিষয়গুলো জানব। আল্লাহ আমাদের এই দারস কবুল করুন এবং এর মাধ্যমে আমাদের অন্তর পরিশুদ্ধ করে তাওহীদের পথে চলার জন্য সহজ করে দিন আমীন।

  • Abrahametry

    ভাই কিতাব আত তাওহিদের পুরো অডিও ইডিটিং আবারো চলছে ইনশাহ আল্লাহ আমরা শিঘ্রই সব একসাথে লিঙ্ক দেব

  • Abrahametry

    বারাকাল্লাহু ফী